নির্মিতিবাংলাভাবসম্প্রসারণ

ভাবসম্প্রসারণঃ নানান দেশের নানান ভাষা, বিনা স্বদেশীয় ভাষা, পুরে কি আশা?

নানান দেশের নানান ভাষা, বিনা স্বদেশীয় ভাষা, পুরে কি আশা?

আজকের পোস্টে তোমাকে স্বাগতম। আজকের এই পোস্টে আমরা একটি ভাবসম্প্রসারণ দেখব – নানান দেশের নানান ভাষা, বিনা স্বদেশীয় ভাষা, পুরে কি আশা?। এই ভাবসম্প্রসারণটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি ভাবসম্প্রসারণ। এটি অনেকবার পরীক্ষায় কমন পড়ে।

তুমি যেই শ্রেণিতেই পড়োনা কেন – এই ভাবসম্প্রসারণটি যদি তুমি মুখস্ত রাখো তাহলে তোমার পরীক্ষায় কমন পড়ার চান্স অনেক বেশি। আর এইজন্যই আজকে আমরা একটি খুবই সহজ এবং মুখস্ত করার মতো ভাবসম্প্রসারণ নিয়ে এসেছি।

তাহলে চলো, শুরু করা যাক।

নানান দেশের নানান ভাষা, বিনা স্বদেশীয় ভাষা, পুরে কি আশা?

মূলভাব : মাতৃভাষার মাধ্যমে একটি জিনিস যত সহজে বোঝা যায় অন্য ভাষায় তা এত সহজে বোঝা যায় না।

সম্প্রসারিত ভাব : ভাষা সমাজবদ্ধ মানুষের পারস্পরিক ভাব বিনিময়ের একটি মাধ্যম। পৃথিবীতে নানা প্রকার ভাষা রয়েছে। তন্মধ্যে মাতৃভাষার শ্রেষ্ঠত্ব ও অবস্থান সর্বশীর্ষে। মাতৃভাষার মাধ্যমে যতটুকু স্বাচ্ছন্দ্য ও সাবলীলভাবে মনের ভাব প্রকাশ করা যায় পৃথিবীর অন্য কোনো ভাষাতে তেমনটি পারা যায় না। মানুষের চিন্তা, কল্পনা, স্বপ্ন প্রভৃতি মাতৃভাষার মাধ্যমেই নিষ্পন্ন হয়ে থাকে। কোনো বিষয়কে আমরা মাতৃভাষার মাধ্যমে যত সহজে বোঝতে ও উপলব্ধি করতে পারি বিদেশি কোনো ভাষার মাধ্যমে তা পারা যায় না। কোল থেকে প্রকৃতিগতভাবেই মানুষ মাতৃভাষা আয়ত্ত করে থাকে। শৈশবের বাক্য সূচনা থেকে মাতৃভাষার সঙ্গে মানুষের সংযোগ গেলে অনেক চেষ্টা ও সাধনার প্রয়োজন হয়। মাতৃভাষা মানুষের জন্মসূত্রে প্রাপ্য আবেগ প্রকাশের প্রথম ভাষা। কর্মজীবনে ও শিক্ষাক্ষেত্রে মানুষ একাধিক ভাষা আয়ত্ত করে থাকে কিন্তু মাতৃভাষা ভিন্নভাবে পূর্ণ অভিব্যক্তি ঘটানো আর কোনো ভাষাতেই সম্ভব নয়। কবি শ্রী মাইকেল মধুসূদন দত্ত ইংরেজি ভাষায় অগাধ পাণ্ডিত্যের অধিকারী হওয়া সত্ত্বেও ইংরেজি ভাষায় কাব্য তা করে সাফল্য অনিশ্চিত জেনে তিনি প্রত্যাবর্তন করেছেন মাতৃভাষার কোলে। মাতৃভাষার মধ্যে যে অগাধ রত্নরাশি রয়েছে তা তিনি উপলব্ধি করতে পেরেছিলেন। তাই তিনি লিখেছেন-

‘পালিলাম আজ্ঞা সুখে পাইলাম কালে

মাতৃভাষা-রূপ খনি পূর্ণ মণিজালে’

মানুষের ভাষা আয়ত্তের দক্ষতা নিজের ভাষাকে অতিক্রম করে দেশান্তরে ছড়িয়ে পড়লেও মনের তৃপ্তি ও আনন্দের যে যত পণ্ডিতই হোক না কেন মাতৃভাষা ব্যতীত ভাবের পূর্ণ প্রকাশ কখনোই সম্ভব নয়। মাতৃভাষা ভিন্ন আবেগের তৃপ্তি ও মনের স্বাদ না মাতৃভাষার কাছেই আশ্রয় নিতে হয়। লিখনে এবং কথোপকথনে মাতৃভাষার মতো এমন সাবলীল অনুভূতি বিদেশি কোনো ভাষাতে নেই । মাতৃভাষার উৎকর্ষ সাধনের জন্য আজ আন্তর্জাতিকভাবে স্বীকৃত হয়ে “বিশ্ব মাতৃভাষা দিবস’।

মন্তব্য: মনের ভাব প্রকাশের ক্ষেত্রে মাতৃভাষার গুরুত্ব ও উপযোগিতা অনস্বীকার্য। মাতৃভাষার মর্যাদা রক্ষা ও উৎকর্ষ সাধনে সকলেরই আত্মনিয়োগ করা উচিত।

আরও পড়ুনঃ

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে ভাব সম্প্রসারণ যেটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই ভাব সম্প্রসারণ নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

Related posts

রচনাঃ পাট

Swopnil

অনুচ্ছেদঃ আমার পরিবার

Swopnil

আমাদের গ্রাম বাংলা রচনা

Swopnil

Leave a Comment