বাংলাঅনুচ্ছেদনির্মিতি

অনুচ্ছেদঃ ফেরিওয়ালা

ফেরিওয়ালা

আজকের পোস্টে তোমাকে স্বাগতম। আজকের এই পোস্টে আমরা একটি  অনুচ্ছেদ দেখব – ফেরিওয়ালা। এইটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুচ্ছেদ। এটি অনেকবার পরীক্ষায় কমন পড়ে।

তুমি যেই শ্রেণিতেই পড়োনা কেন – এইটি যদি তুমি মুখস্ত রাখো তাহলে তোমার পরীক্ষায় কমন পড়ার চান্স অনেক বেশি। আর এইজন্যই আজকে আমরা একটি খুবই সহজ এবং মুখস্ত করার মতো অনুচ্ছেদ নিয়ে এসেছি।

তাহলে চলো, শুরু করা যাক।

ফেরিওয়ালা

ফেরিওয়ালা আমাদের প্রাত্যহিক জীবনে অতি পরিচিত একজন ব্যক্তি। রাস্তায় রাস্তায়, দ্বারে দ্বারে পণ্যসামগ্রী ফেরি করে বিক্রি করাই তাঁর কাজ। ফেরিওয়ালা স্বল্প পুঁজির একজন ক্ষুদে ব্যবসায়ী। কোনো কোনো ফেরিওয়ালা মাথায় করে পণ্য বিক্রি করেন। আবার ঠেলাগাড়ি নিয়েও অনেককে পণ্য বিক্রি করতে দেখা যায়। ফেরিওয়ালারা খেলনা, পুতুল, ফিতা, মাথার কাঁটা, বেলুন, প্রসাধনী, জামাকাপড় প্রভৃতি পণ্য বিক্রি করে থাকেন। কোনো কোনো ফেরিওয়ালা আইসক্রীম, চকলেট, চানাচুর, ফল-মূল, মাছ, মুরগি শাক- সবজি প্রভৃতি বিক্রি করেন। ফেরিওয়ালাদের কেউ কেউ দৈনিক পত্রিকা, সামাজিক পত্র-পত্রিকাও বিক্রি করেন। ফেরিওয়ালাদের পণ্য বিক্রি করার ক্ষেত্রে তাদের উপস্থিতি সম্পর্কে ক্রেতাদের অবহিত করার একটা স্বতন্ত্র পন্থা আছে। অদ্ভুত ধরনের শব্দ বা লম্বা হাক- ডাকের মাধ্যমে ফেরিওয়ালারা তাদের খদ্দরদের মনোযোগ আকর্ষণের চেষ্টা করেন। ফেরিওয়ালাদের পণ্যসামগ্রীর মূল্য নির্ধারিত থাকে না। দরকষাকষির মাধ্যমে মূল্য সম্পর্কে ক্রেতা ও ফেরিওয়ালা একটা মীমাংসায় আসেন। ফেরিওয়ালারা পরিচিত খদ্দেরের কাছে কখনো কখনো বাকিতেও পণ্য বিক্রি করে থাকেন। ফেরিওয়ালারা শিশুদের সহজেই আকর্ষণ করতে সক্ষম হন। তবে অনেক ফেরিওয়ালা খুবই ধূর্ত থাকেন। যখন পুরুষ সদস্যরা বাসা-বাড়িতে থাকেন না ফেরিওয়ালারা তাদের পণ্য বিক্রির জন্য সেই সময়টিকে বেছে নেন। মহিলা এবং শিশুরাই ফেলিওয়ালাদের পণ্য বিক্রির উপযুক্ত ক্রেতা। তবে একথা সত্য যে, ফেরিওয়ালাদের কাছে সুলভ মূল্যে পণ্যসামগ্রী পাওয়া যায়। ফেরিওয়ালারা সমাজের উপকারী ব্যক্তি। ঘরে বসেই তাদের কাছ থেকে প্রয়োজনীয় অনেক কিছুই কেনা যায়। ফেরিওয়ালারা সমাজের দরিদ্র শ্রেণির লোক। তাদের আয়-রোজগার খুবই সামান্য । সুদিনের স্বপ্ন নিয়ে সামান্য লাভের আশায় তারা দ্বারে দ্বারে ঘুরে বেড়ায়।

See also  রচনাঃ বাংলাদেশের ফল

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে যে আবেদন পত্রটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই পত্র নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

Related posts

ভাবসম্প্রসারণঃ স্বাস্থ্যই সকল সুখের মূল

Swopnil

রচনাঃ ট্রাফিক জ্যাম ও ঢাকা শহর

Swopnil

অনুচ্ছেদঃ মহান স্বাধীনতা দিবস

Swopnil

Leave a Comment