Regular Content

অনুচ্ছেদঃ বিজয় দিবস

বিজয় দিবস

আজকের পোস্টে তোমাকে স্বাগতম। আজকের এই পোস্টে আমরা একটি  অনুচ্ছেদ দেখব – বিজয় দিবস। এইটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুচ্ছেদ। এটি অনেকবার পরীক্ষায় কমন পড়ে।

তুমি যেই শ্রেণিতেই পড়োনা কেন – এইটি যদি তুমি মুখস্ত রাখো তাহলে তোমার পরীক্ষায় কমন পড়ার চান্স অনেক বেশি। আর এইজন্যই আজকে আমরা একটি খুবই সহজ এবং মুখস্ত করার মতো অনুচ্ছেদ নিয়ে এসেছি।

তাহলে চলো, শুরু করা যাক।

বিজয় দিবস

বাঙালি জাতির জীবনে বিজয় দিবস একটি তাৎপর্যপূর্ণ দিন। জাতীয় জীবনে এ দিবসের প্রভাব ও গুরুত্ব অতুলনীয়। প্রতি বছর ১৬ ডিসেম্বর ব্যাপক উৎসাহ ও উদ্দীপনার মধ্য দিয়ে দিবসটি উদযাপিত হয়ে থাকে। ১৯৭১ সালের এ দিনে পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর আত্মসমর্পণের মধ্য দিয়ে স্বাধীন-সার্বভৌম বাংলাদেশের অভ্যুদয়ের ঐতিহাসিক মুহূর্তের স্মারক আমাদের মহান বিজয় দিবস। দিবসটি আনন্দের চির উৎস। আনন্দের সাথে সাথে দিবসটি আমাদের মনে স্বজন হারানোর বেদনাকেও জাগিয়ে তোলে। কারণ বিজয় অর্জনের জন্যে বাঙালি জাতিকে বহু যুগ ধরে নিরন্তর আন্দোলন-সংগ্রাম চালিয়ে যেতে হয়েছে। রাজপথের আন্দোলনের সাথে সাথে গণতান্ত্রিক উপায়েও স্বাধিকার লাভের জন্যে লড়াই চালাতে হয়েছে। অবশেষে বাঙালিকে হাতে তুলে নিতে হয় অস্ত্র। পাকিস্তানি হানাদার বাহিনীর বিরুদ্ধে এক অসম সশস্ত্র যুদ্ধে বাঙালির একমাত্র শক্তি ছিল অকুন্ঠ দেশপ্রেম আর আত্মদানের প্রেরণা। ১৯৭১ সালে দীর্ঘ নয় মাসের রক্তক্ষয়ী যুদ্ধে ত্রিশ লক্ষ প্রাণের বিসর্জনে বাঙালি জাতি ছিনিয়ে আনে তার প্রাণপ্রিয় স্বাধীনতা। বিজয় দিবসে জাতি। পরম শ্রদ্ধায় স্মরণ করে মুক্তিযুদ্ধে আত্মদানকারী বীর সন্তানদের। স্বজন হারানোর কান্না গুমরে ওঠে সকলের প্রাণে। বিজয় দিবস উদযাপনের বিষয়টি কোনোক্রমেই আনুষ্ঠানিকতা-সর্বস্ব হওয়া উচিত নয়। আমাদের মনে রাখতে হবে স্বাধীনতাকে অর্থপূর্ণ করার জন্যে আমাদের আরো অনেক পথ পাড়ি দিতে হবে। একটি বৈষম্যহীন, উদার-অসাম্প্রদায়িক ও অর্থনৈতিকভাবে সমৃদ্ধ দেশের স্বপ্ন দেখেছিলেন আমাদের শহিদ মুক্তিযোদ্ধারা। তাঁদের স্বপ্ন পূরণ ছাড়া বিজয় দিবসের তাৎপর্য পূর্ণতা পাবে না।

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে যে আবেদন পত্রটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই পত্র নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

Related posts

ভাবসম্প্রসারণঃ ভোগে প্রকৃত সুখ নাই, কর্ম সম্পাদন করাতেই প্রকৃত সুখ

Swopnil

ভাবসম্প্রসারণঃ অল্প বিদ্যা ভয়ংকরী

Swopnil

ভাবসম্প্রসারণঃ সাহিত্য জাতির দর্পণস্বরূপ

Swopnil

Leave a Comment