অনুচ্ছেদনির্মিতিবাংলা

অনুচ্ছেদঃ তথ্য প্রযুক্তি

তথ্য প্রযুক্তি

আজকের পোস্টে তোমাকে স্বাগতম। আজকের এই পোস্টে আমরা একটি  অনুচ্ছেদ দেখব – তথ্য প্রযুক্তি। এইটি অনেক গুরুত্বপূর্ণ একটি অনুচ্ছেদ। এটি অনেকবার পরীক্ষায় কমন পড়ে।

তুমি যেই শ্রেণিতেই পড়োনা কেন – এইটি যদি তুমি মুখস্ত রাখো তাহলে তোমার পরীক্ষায় কমন পড়ার চান্স অনেক বেশি। আর এইজন্যই আজকে আমরা একটি খুবই সহজ এবং মুখস্ত করার মতো অনুচ্ছেদ নিয়ে এসেছি।

তাহলে চলো, শুরু করা যাক।

তথ্য প্রযুক্তি

আধুনিক বিজ্ঞানের এ যুগে যে প্রযুক্তিটি গোটা বিশ্বকে হাতের মুঠোয় এনে ‘Global Village’-এ পরিণত করেছে তা হলো তথ্য- প্রযুক্তি। বর্তমানে পৃথিবীতে যে বিশ্বায়ন চলছে তা সম্ভব হয়েছে এ প্রযুক্তির কারণেই। মানুষ তার প্রয়োজন পূরণ, জীবনমান উন্নত করা এবং পৃথিবী ও মহাবিশ্বের যাবতীয় তথ্য ও রহস্য জানার জন্য যে কৌশল বা উপায় অবলম্বন করে তা-ই তথ্য-প্রযুক্তি। তবে এ বিষয়টি এর মধ্যেই সীমাবদ্ধ নেই। এটি একটি ব্যাপক ও বহুমাত্রিক বিষয়। এর সাথে নানাবিধ বিষয় জড়িত। কম্পিউটারের মাধ্যমে এ প্রযুক্তির বৈপ্লবিক পরিবর্তন সাধন হয়েছে। এর মাধ্যমে অর্থনৈতিক, রাজনৈতিক, সামাজিক ও ব্যক্তিগত তথ্য সংগ্রহ, সংরক্ষণ ও নিমিষেই সরবরাহ করা যায়। আর এ ক্ষেত্রে তথ্য-প্রযুক্তির অন্যতম প্রধান উপাদান গুরুত্বপূর্ণ ভূমিকা পালন করেছে। এই ইন্টারনেটের মাধ্যমেই চোখের পলকে পৃথিবীর এক প্রান্ত থেকে অন্য প্রান্তে তথ্যাদি আদান-প্রদান করা হয়। কম্পিউটার ও ইন্টারনেট যে বিশ্বব্যাপী জনপ্রিয় ও গ্রহণযোগ্য তথ্য-প্রযুক্তির মাধ্যম তা একটি পরিসংখ্যানে স্পষ্ট হয়। পৃথিবীর প্রায় ৮ কোটির মতো কম্পিউটার ব্যবহারকারী ইন্টারনেটের আওতায় রয়েছে। বর্তমান বিশ্বে তথ্য-প্রযুক্তির বহুল ব্যবহৃত আরেকটি মাধ্যম হলো মোবাইল ফোন বা মুঠো ফোন। এর মাধ্যমে বিশ্বের প্রত্যন্ত অঞ্চলও তথ্য-প্রযুক্তির আওতায় এসেছে। একটি মোবাইল ফোন হাতে থাকা মানেই যেন পুরো বিশ্বের যাবতীয় তথ্য হাতের মুঠোয় থাকা। মুক্তবাজার অর্থনীতির এ যুগে জাতীয় উন্নয়নের জন্য তথ্য-প্রযুক্তি ব্যবহারের কোনো বিকল্প নেই। এর যথাযথ ব্যবহারের মাধ্যমেই উন্নত বিশ্বের মতো আমাদের দেশের সামগ্রিক উন্নয়ন সম্ভব। তবে তথ্য-প্রযুক্তির কিছু নেতিবাচক দিকও রয়েছে। এর মাধ্যমে আমাদের সমাজ বিশেষ করে যুবসমাজ বিদেশি অপসংস্কৃতির দিকে ঝুঁকে যাচ্ছে। এটি এদেশিয় সংস্কৃতি ও যুবসমাজের জন্য অত্যন্ত ক্ষতিকর। এছাড়াও হ্যাকিং-এর মাধ্যমে বর্তমানে অনেক প্রয়োজনীয় ও গোপনীয় তথ্য এমনকী বিপুল পরিমাণ অর্থ পর্যন্ত বেহাত হচ্ছে এ প্রযুক্তির মাধ্যমে। এর ফলে অনেক দেশ, জাতি, সংগঠন ও আর্থিক প্রতিষ্ঠান হুমকির মুখে পড়ছে। তবে মানুষের ব্যবহারের ওপর নির্ভর করে এ প্রযুক্তির ইতিবাচকতা ও নেতিবাচকতা । আগামীদিনের চ্যালেঞ্জ মোকাবেলায় এ প্রযুক্তিকে সকল প্রকার উন্নয়নের হাতিয়ার হিসেবে ব্যবহার করা উচিত ।

সম্পূর্ণ পোস্টটি মনোযোগ দিয়ে পড়ার জন্য তোমাকে অসংখ্য ধন্যবাদ। আশা করছি আমাদের এই পোস্ট থেকে যে আবেদন পত্রটি তুমি চাচ্ছিলে সেটি পেয়ে গিয়েছ। যদি তুমি আমাদেরকে কোন কিছু জানতে চাও বা এই পত্র নিয়ে যদি তোমার কোনো মতামত থাকে, তাহলে সেটি আমাদের কমেন্টে জানাতে পারো। আজকের পোস্টে এই পর্যন্তই, তুমি আমাদের ওয়েবসাইট ভিজিট করে আমাদের বাকি পোস্ট গুলো দেখতে পারো।

Related posts

অনুচ্ছেদঃ পানি দূষণ

Swopnil

ভাবসম্প্রসারণঃ স্পষ্টভাষী শত্রু নির্বাক মিত্র অপেক্ষা ভালো

Swopnil

প্রতিবেদনঃ তোমার বিদ্যালয়ের গ্রন্থাগার সম্পর্কে একটি প্রতিবেদন রচনা কর

Swopnil

Leave a Comment